মুভি রিভিউ: উরান!

≠বলিউড মুভি খুব বেশি একটা হয়তো দেখিনি। তবে যতগুলো দেখেছি এরমধ্যে এতোদিন পর্যন্ত PK ই বলিউডে আমার দেখা সেরা মুভির একটি ছিল। কিন্তু UDAAN দেখার পর মনে হচ্ছে এটাই সম্ভবত আমার দেখা বলিউডে সেরা মুভি।

≠কাহিনি সারসংক্ষেপ: মা হারা ১৬ বছরের যুবক রোহান। বাবা তাকে  একদম ছোটোবেলা থেকেই হোস্টেলে রেখেছে।কিন্তু নানা কারনে বাবার প্রতি তার প্রচন্ড্র ঘৃনা। হঠাৎই কলেজের নিয়ম না মানার কারনে তাকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়। তাকে ফিরে আসতে হয় বাসায়। রেখে আসতে হয় তার পুরনো সব বন্ধু। তাকে ফিরতে হয় তার ঘৃনার পাত্র তার বাবার কাছে। আর ফিরে এসেই সে দেখতে পারে তার  বাবার পরিবর্তন, তার বাসার সবকিছুর পরিবর্তন। গল্পটা শুধু বাবার আর বাসার পরিবর্তন নিয়ে না মোটেও।গল্পটা প্রতিবাদের,গল্পটা নিজেকে খুজে পাওয়ার,গল্পটা নিজের মতো করে বাচার,আর আরেকজনকে বাচতে সাহায্য করার।
.
≠অভিনয়: প্রথমেই বলতে হয় রনিত রায়ের কথা যিনি রোহানের বাবার ভূমিকায় ছিলেন। তিনি নেগেটিভ রোলে একদম মারদাঙ্গা অভিনয় করেছেন। আর মূল চরিত্র ‘রোহানের’ নামভূমিকায় ছিলেন ‘রজত বার্মেচা’। ছেলেটা একদম রিয়েলিস্টিক ধাচ বজায় রেখে অভিনয় করেছে প্রত্যেকটা সিনে।সাপোর্টিং রোলগুলোও পরিচালনার দক্ষতায় পর্দায় ফুটে উঠেছে দূর্দান্তভাবে। তবে আমার সবচেয়ে নজর কেড়েছে রোহানের সৎ ভাই পিচ্ছি(নামটা মনে পড়ছে না) ছেলেটার অভিনয়।

.
≠পরিচালনা: সিনেমার পরিচালক ভিক্রামাদিত্য মোটওয়ানে আর তার পাশাপাশি আনুরাগ কাশ্যপ ;দুজনে মিলে গল্পটা ভালোই লিখেছেন।পরিচালক খুবই গুছিয়ে আর বাস্তবতার ধাঁচ রেখে অসাধারণভাবে গল্পটা আর অভিনয়গুলো ফুটিয়ে তুলেছেন।

.
≠হৈ হুল্লুড় ছাড়াও এতো লো বাজেটে এতো সুন্দর মুভি বানানো যায় এটা আবারও প্রমান করে ছাড়লেন ভিক্রামাদিত্য মোটওয়ানে। সবচেয়ে বেশি ভালো লাগছিল যখন সিনেমার শেষ পর্যায়ে রোহানের ঔ সৎ্ ছোট ভাইটাকেও দেখলাম শয়তান বাবার কবল থেকে চিরতরে মুক্তি পায়। আর হ্যাঁ সিনেমাটি পরিবার নিয়েও দেখতে পারবেন। যারা এখনও দেখেননি তারা দেখে নিতে পারেন। ভালো লাগবে আশা করি। 🙂
লিখেছেন: Asiq Ahmed Siam

Be the first to comment on "মুভি রিভিউ: উরান!"

Leave a Reply