প্রথম সপ্তাহেই জমিয়ে দিলেন পায়েল

একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে কেন্দ্রবিন্দুতে রেখে শুরু হয়েছে ‘জি বাংলা’-র নতুন ধারাবাহিক। গল্প কোন দিকে মোড় নেবে, তা ভবিষ্যৎ বলবে। কিন্তু পায়েল আবারও প্রমাণ করলেন তিনিই সেরা। ছোটপর্দার বড় তারকা পায়েল দে-কে এখনও হয়তো ‘মা দুর্গা’ বা ‘বেহুলা’ রূপেই মনে রেখেছেন বাংলা টেলিভিশনের দর্শক। সেই ইমেজটাই ভেঙেচুরে দিতে চান পায়েল।

কিছুদিন আগেই এবেলা ওয়েবসাইটকে নতুন ধারাবাহিকের সংবাদটি দেওয়ার সময়ে জানিয়েছিলেন যে, অভিনয় জীবনের সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে দেখা যাবে তাঁকে। গত ৬ মার্চ থেকে সন্ধে ৭টার স্লটে শুরু হয়েছে জি বাংলা-র নতুন ধারাবাহিক ‘তবু মনে রেখো’। ধারাবাহিকের গল্প নায়ক-নায়িকা-কেন্দ্রিক হবে স্বাভাবিকভাবেই কিন্তু এখানে সমীকরণটি একটু অন্য রকম। কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন একজন স্কিৎজোফ্রেনিক গৃহবধূ যাঁকে ঠিক নায়িকাও বলা যায় না আবার তিনি যা যা করেন, তা অনেকটাই খলনায়িকাসুলভ। আসলে স্কিৎজোফ্রেনিয়া নামক অসুখটি যাঁদের মনে বাসা বাঁধে,

তাঁরা সারাক্ষণ একটি কাল্পনিকতায় বিচরণ করেন। তাঁদের সেই মনগড়া জগতে যা কিছু ঘটে চলে সেটা সচরাচর তাঁদের পরিপন্থী আর সেখান থেকেই জন্ম নেয় মারাত্মক সন্দেহ। উদাহরণ দেওয়া যাক নতুন এই ধারাবাহিক থেকেই। এখানে স্কিৎজোফ্রেনিক সুপ্রিয়া সব সময়েই ভাবে যে তার স্বামী রজত অন্য কোনও নারীর প্রতি আসক্ত এবং হয়তো একদিন সে তাকে ছেড়ে চলে যাবে। এটা কোনও সাধারণ দম্পতিসুলভ সন্দেহ নয়, এটা একটা দমবন্ধকরা অনুভূতি। যিনি ভাবছেন তাঁর কাছে এবং যাঁদের নিয়ে ভাবছেন, তাঁদের কাছেও। স্কিৎজোফ্রেনিকদের আবার নানা ধরনের শ্রেণিবিভাজন রয়েছে আর এই অসুখের অনুষঙ্গ হিসেবেই আসে অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার এবং স্প্লিট পার্সোনালিটি সিনড্রোম যা অসুখের মাত্রাকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয়।

এই জটিল মানসিক রোগকে অভিনয়ে অসম্ভব দক্ষতায় ফুটিয়ে তুলছেন পায়েল। টেলিভিশনে ‘অভিনয়’ অনুপস্থিত, সবটাই সাজানো-গোছানো প্যাকেজিং— এই সমালোচনা বছরের পর বছর ধরে হয়ে আসছে। সেটা সম্পূর্ণত ভুল নয় কিন্তু এর মধ্যেই ভাল অভিনেতা-অভিনেত্রীরা এক্সেল করার চেষ্টা করেন যদি তেমন চিত্রনাট্য বা গল্প থাকে। এই ধারাবাহিকের অন্যান্য চরিত্রের কাস্টিংও দারুণ। ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়, পুষ্পিতা মুখোপাধ্যায়ের, তনুকা ভট্টাচার্যের মতো অভিজ্ঞ তারকারা রয়েছেন, অপেক্ষাকৃত নতুন তারকারাও রয়েছেন। সব মিলিয়ে দারুণ টিমওয়ার্ক।

Be the first to comment on "প্রথম সপ্তাহেই জমিয়ে দিলেন পায়েল"

Leave a Reply