পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনায় নাগরিক অংশগ্রহণ বাড়ানো প্রয়োজন : লিওনি

নদীমাতৃক বাংলাদেশে পানি স্বল্পতা না থাকলেও সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি।  বিভিন্ন কারণে আমাদের পানি সম্পদ আজ হুমকির মুখে। সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে পানি সম্পদকে রক্ষা করার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে।  

https://www.bdnow24.com/category/বাংলাদেশ/
রাজধানীর গুলশানের স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে  আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়াটার এইড কর্তৃক আয়োজিত পানি ও স্যানিটেশনের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনাসংক্রান্ত ‘ওয়াটারসেড: এমপাওয়ারিং সিটিজেন’ শীর্ষক একটি প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয়  বাংলাদেশে নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত লিওনি মার্গারেটা কুয়েলিনেয়ার বলেন, এসডিজি-৬-এ সবার জন্য নিরাপদ খাবার পানি এবং স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশনের যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা আছে, তা অর্জনে সরকারের সঙ্গে বেসরকারি সংগঠনগুলোর সম্পৃক্ততা জরুরি। আমাদের প্রান্তের মানুষের কথা শুনতে হবে, তাদের মতামতকে বিবেচনা করতে হবে।


অন্যদিকে পানিসম্পদ পরিকল্পনা সংস্থার (ওয়ারপো) মহাপরিচালক মো. শরাফত হোসেন খান বলেন, কয়েক দশকে মানুষের পানির প্রাপ্যতা বেড়েছে। তবে আমরা ভূগর্ভস্থ পানির প্রতি নির্ভরশীল হচ্ছি দিন দিন। ভূগর্ভস্থ পানির ৮০ শতাংশই সেচের কাজে চলে যায়। ১০ শতাংশ গৃহস্থালি ও শিল্প খাতে চলে যাচ্ছে। শুকনো মৌসুমে পানির প্রাপ্যতা দুই-তৃতীয়াংশ কমে যায়। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ২০৫০ সাল নাগাদ এরও এক-তৃতীয়াংশ কমে যাবে বলে ধারণা হরা হচ্ছে। এ জন্য পানির উৎসের সঠিক ব্যবস্থাপনা এখন অত্যন্ত জরুরি।

আবার ওয়াটার এইডের বাংলাদেশীয় প্রধান খায়রুল ইসলাম বলেন, উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় সব মানুষকে সম্পৃক্ত করতে হলে প্রান্তের মানুষের কথা যাতে কেন্দ্রে এসে পৌঁছায়, তা নিশ্চিত করতে হবে। মানুষ কোথায় গিয়ে তার অধিকারের কথা বলবে, তাকে সেই জায়গার সন্ধান দিতে হবে।

আয়োজিত অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. মাহফুজুর রহমান, সিমাভির জ্যেষ্ঠ কর্মসূচি কর্মকর্তা সারা আহারারি, ওয়াটার এইডের কর্মসূচি ও অ্যাডভোকেসি বিভাগের পরিচালক লিয়াকত আলী প্রমুখ।

Be the first to comment on "পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনায় নাগরিক অংশগ্রহণ বাড়ানো প্রয়োজন : লিওনি"

Leave a Reply