নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি 

সমস্ত জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। গত ১৪ জুন দলের সিনিয়র নেতাদের পরামর্শে নির্বাচনের জন্য ভোট চেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া।দলীয় নেতাদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে এই ইতিবাচক রাজনীতির পক্ষে আনুষ্ঠানিক ভাবে অবস্থান নিয়েছে বিএনপি।

https://www.bdnow24.com/category/বাংলাদেশ/
আগামী জুলাই মাসে ইসির সংলাপে যোগ দেওয়ার জন্য বিএনপির প্রস্তুতি গ্রহণের কথাও জানা গেছে। 

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে যাবে না এ কথা আমরা কখনো বলিনি। বলেছি, সহায়ক সরকারের দাবি আদায় করেই যাব। সহায়ক সরকারের প্রস্তাব নির্বাচনে যাওয়ার জন্যই দেওয়া হবে; অর্থাৎ বিএনপি নির্বাচনের পক্ষে। তবে সরকারের এটা মনে করা ঠিক হবে না যে দাবি পূরণ না করলেও বিএনপি নির্বাচনে যাবে। ’ তিনি জানান, নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সব প্রস্তুতিই বিএনপি নিচ্ছে। তবে সরকার কোনো দাবি পূরণ না করলে শেষ পর্যন্ত কী হবে সেটি সময় বলে দেবে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মতে, ধানের শীষের পক্ষে ভোট চেয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন রাজনীতিতে এক ধরনের ইতিবাচক বার্তা দিলেন। ফলে জনগণও বুঝবে, বিএনপি নির্বাচন চায়, নির্বাচন ভণ্ডুল করতে চায় না। ফলে সরকারকে এখন সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য খোলা মন নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। ফখরুল বলেন, সরকার যদি মনে করে বিএনপি নির্বাচনে এসেই গেছে, আর আলোচনার দরকার নেই, তাহলে ভুল করবে। কারণ নির্বাচন বর্জন শেষ দিনেও করা যায়।

দলটির একাধিক সিনিয়র নেতার সঙ্গে আলোচনা করে জানা যায়, কৌশলগত বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করেই নির্বাচনমুখী অবস্থান স্পষ্ট করেছে বিএনপি। এর প্রথম উদ্দেশ্য হলো দলের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখা। দ্বিতীয়ত, জনগণকে দেখানো যে বিএনপি নির্বাচনের মাঠে নেমে গেছে। কিন্তু সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে শেষ পর্যন্ত সরকার যদি কোনো দাবি না মানে এবং বিএনপির নির্বাচন বর্জন করতে হয়, সেই দায় যেন সরকারের ওপরেই বর্তায়—এমনটিই লক্ষ্য তাদের।

আগেই নির্বাচনে নেমে পড়ার ঘোষণা দিলে সহায়ক সরকারসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে বিএনপির দর-কষাকষির সুযোগ কমে যাবে বলে দলটির একাংশের অভিমত। অনেকের মতে, সহায়ক সরকার ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে না—এমন বক্তব্য ওই অংশের নেতাদের মুখ থেকেই শোনা যায়। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে ওই ধরনের বক্তব্য কমে গেছে।

জানতে চাইলে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন , ‘নির্বাচনে তো বিএনপি যাবেই। কিন্তু হঠাৎ করে ধানের শীষের পক্ষে চেয়ারপারসন কেন ভোট চাইলেন সে কারণ আমার জানা নেই। ’ তা ছাড়া নির্বাচনী এলাকা কেরানীগঞ্জে ব্যস্ত থাকায় এ বিষয়টি জানা যায়নি; যোগ করেন বিএনপির এই নেতা।

১৪ জুন বসুন্ধরা কনভেনশন সিটিতে বিএনপির এক ইফতার পার্টিতে দেওয়া বক্তব্যে হঠাৎ করেই ধানের শীষের পক্ষে ভোট চেয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘সরকারকে আর একতরফা নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। ’ তিনি ভোটের প্রস্তুতি নিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। একইভাবে পরেরদিন ১৫ জুনও তিনি জানান, ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে যাবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হঠাৎ চেয়ারপারসনের নির্বাচনমুখী ওই বক্তৃতা শুনে সেদিন উপস্থিত বিএনপি নেতারাও হকচকিয়ে যান। পরে তাঁদেরকে খালেদা জিয়া জানান, ইতিবাচক রাজনীতির আবহ তৈরি করার জন্যই তিনি ধানের শীষে ভোট চেয়েছেন। সেই সঙ্গে উপস্থিত নেতাদের তিনি সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকের আলোচনা এবং গুলশান কার্যালয়ে অনানুষ্ঠানিক একাধিক বৈঠকের কথাও স্মরণ করিয়ে দেন।

নির্ভরযোগ্য সূত্র মতে, ওই দিনের আলোচনা ছাড়াও দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাম্প্রতিক সময়ে নির্বাচন প্রশ্নে আলোচনা হয়। এসব আলোচনায় নেতারা যুক্তি দেন, সহায়ক সরকার না হলে নির্বাচনে যাব না—এ কথা না বলে সহায়ক সরকারের দাবি পূরণ করেই নির্বাচনে যাব—এভাবে বলা ঠিক হবে। তা ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার কথা বললে নেতাকর্মীরা নিরুৎসাহিত হয়। আবার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে বর্তমানে বিএনপি নির্বাচনমুখী যেসব তৎপরতা চালাচ্ছে সে বিষয়ে সরকার কিংবা জনগণও প্রশ্ন তুলতে পারে বলে কেউ কেউ মত দেন।

বস্তুত বিএনপির নির্বাচনমুখী তৎপরতা শুরু হয় গত বছরের ১৯ মার্চ অনুষ্ঠিত জাতীয় কাউন্সিল থেকে। সেখানে খালেদা জিয়া ‘ভিশন ২০৩০’ শিরোনামে বিএনপির রূপকল্প উপস্থাপন করেন; যাতে ক্ষমতায় গেলে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় দল কী কী পদক্ষেপ নেবে তা তুলে ধরা হয়। আবার ওই রূপকল্পই বিস্তারিত প্রস্তাব ও প্রতিশ্রুতি আকারে জনসম্মুখে উপস্থাপিত হয় গত ১০ মে। এর আগে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন নিয়ে গত বছরের ২০ নভেম্বর ১৩ দফা প্রস্তাব উপস্থাপন করে বিএনপি। আর এখন নির্বাচনে যাওয়ার জন্য দলটি সহায়ক সরকারের প্রস্তাব নিয়ে কাজ করছে, যা ঈদের পরে উপস্থাপন করার কথা।

Be the first to comment on "নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি "

Leave a comment

Your email address will not be published.


*