দেড় লাখ নতুন মুক্তিযোদ্ধার আবেদন

মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য সারা বাংলাদেশ থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ আবেদনপত্র পাওয়া গেছে। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য অনলাইনে ও সরাসরি আবেদনের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৪২ হাজার ৯৫০টি। এসব আবেদন যাচাই বাছাইয়ের জন্য ৪৭০টি কমিটিও গঠন করেছে মুক্তিযোদ্ধ মন্ত্রণালয়। সংসদ ভবনে আজ অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম। মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, ইকবালুর রহীম, কামরুল লায়লা জলি বৈঠকে অংশ নেন। বৈঠকে মন্ত্রণালয় আরো জানায়, বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের ষষ্ঠ তালিকার কাজ শুরু করেছে। এ মুহূর্তে গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ২ লাখ ৩১ হাজার ৩৮৫। ৩৭৩টি যাচাই বাছাই কমিটি এরমধ্যে বছাই প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। ৯৭টি কমিটির প্রতিবেদন এখনো পাওয়া যায়নি। এছাড়া যাচাই বাছাই কমিটির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ২৯ হাজার ৩৭২ জন আপিল আবেদন করেছেন। ফলে যথাযথভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা হলে কোন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা অর্ন্তভুক্তির সম্ভাবনা থাকবে না বা কোন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা বাদ পড়বে না বলে বৈঠকে জানানো হয়।

সংসদ সচিবালয় জানায়, বৈঠকে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় অবস্থিত মুক্তযোদ্ধা সংসদকে লিজ প্রদানকৃত সম্পত্তির লিজের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু এসময়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ উক্ত জমির সদ্ব্যবহার করতে ব্যর্থ হওয়ায় উক্ত সম্পত্তি মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টকে পুনরায় দীর্ঘমেয়াদি চুক্তিতে দেয়ার সুপারিশ করা হয়। এছাড়া বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষার্থে রাশিয়ার আদলে দেশীয় প্রযুক্তি দিয়ে দ্রুত প্যনোরমা ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করার সুপারিশ করা হয়।

Be the first to comment on "দেড় লাখ নতুন মুক্তিযোদ্ধার আবেদন"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*