তোয়ালেতে লুকিয়ে থাকে জীবাণু, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে!


​তোয়ালে নিতান্তই ব্যক্তিগত নিত্যনৈমত্তিক ব্যবহৃত জিনিস। একইসঙ্গে তোয়ালে অনেক সংবেদনশীল কাপড়ও। আপনার সারাদিনের ক্লান্তি শেষে ঘরে ফিরে ফ্রেশ হয়ে কিংবা গোসলের পরে বা খাওয়ার পর তোয়ালেটি ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে। ব্যবহার করে যেমন জীবানুমুক্ত হয় আবার এ তোয়ালেই আপনার শরীরে জীবাণু সংক্রমণের হাতিয়ার হিসেবে কাজ করতে পারে।
সংক্রমণ এড়াতে জেনে নিতে হবে, কতদিন পর আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসটি পরিষ্কার করবেন এবং ঠিক কীভাবে ব্যবহার করবেন। এ নিয়ে নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালিত সর্বশেষ গবেষণায় বলা হয়েছে, নিত্য ব্যবহৃত তোয়ালেতে প্রচুর ব্যাক্টেরিয়া, ছত্রাক, জীবানু, মৃত ত্বকের কোষ ও তরল পদার্থ আচ্ছাদিত অবস্থায় থাকে। একইসঙ্গে এটি ভিন্ন মানুষের শরীরে জীবাণু সংক্রমণে অনুঘটক হিসেবে কাজ করে।

 

গবেষণায় বলা হয়েছে, তোয়ালে মানুষের জীবনের স্বাস্থ্যবিধির রুটিন অনুযায়ী হওয়া উচিত। কারণ, এটি যেমন সাহায্য করে তেমনি রোগের কারণ হতে পারে। তোয়ালেতে প্রচুর লুকানো জীবাণু আছে। যা আপনার শরীরে মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। জীবানুর আশ্রয়স্থল হয়ে যেতে পারে। এতে করে একই তোয়ালে যে ব্যক্তিই ব্যবহার করবেন তারা চর্ম জাতীয় রোগে আক্রান্ত হতে পারেন ও তোয়ালেই আপনাকে মৃত্যুর দিকে নিতে পারে!
সংক্রমণ এড়াতে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন এ গবেষণার প্রধান ও নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ফিলিপ তায়ার্নো। তিনি বলেছেন, তোয়ালের লুকানো জীবাণু এড়িয়ে যেতে তিনবার ব্যবহারের পরে নিজের তোয়ালে পরিষ্কার করা ভাল হবে। এতে করে আপনার তোয়ালে জীবাণুমুক্ত থাকে। সঙ্গে যত দ্রুত পারা যায় শুকিয়ে ফেলবেন। তাতে করে সংক্রমণ ছড়াতে পারে না।
তোয়ালের মাধ্যমে মানুষের শরীরে জীবাণু সংক্রমণ না হওয়ার জন্য অন্তত তিনবার ব্যবহারের পর তোয়ালেটি পরিষ্কার করুন। দ্রুত শুকিয়ে ফেলুন। এ দুটি সহজ কাজের মাধ্যমে জীবাণুমুক্ত থাকা যাবে।

Be the first to comment on "তোয়ালেতে লুকিয়ে থাকে জীবাণু, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে!"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*