গ্রীষ্মকালীন ঝড়ে অন্তত ৯ জনের মৃত্যু

গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ঝড় ও বৃষ্টিতে বেশ কয়েকটি শহর পানি ও মাটিতে ঢাকা পড়ে গেছে। ছোট ছোট সেতু ভেঙে পড়েছে।


সর্বদক্ষিণের ঝড় ওট্টো মধ্য আমেরিকায় আঘাত হানে। বৃহস্পতিবার দুই ক্যাটাগরির এই ঝড়টি নিকারাগুয়ার দক্ষিণাঞ্চলে আঘাত হানে।

ধীরে ধীরে এটি তার শক্তি হারিয়ে একটি গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড়ে পরিণত হয় এবং প্রশান্ত মহাসাগরের দিকে চলে যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হ্যারিকেন কেন্দ্র (এনএইচসি) জানিয়েছে, ওট্টোর বাতাসের সর্বোচ্চ বেগ ছিল ঘণ্টায় ১৭৫ কিলোমিটার।

১৮৫১ সালের পর থেকে কোস্টারিকায় কোনো হ্যারিকেন সরাসরি আঘাত হানেনি।

কোস্টারিকার দক্ষিণাঞ্চলে নিকারাগুয়ার সীমান্তে বাগাচেস এবং উপালায় মৃত্যুর ঘটনাগুলো ঘটেছে।

৬৮ বছর বয়সী ব্যবসায়ী কার্লোস আলবের্তো ভলিও বলেন, “ওট্টো আমাদের দেশ এবং সবাইকে কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলে দিয়েছে। এটি কাটিয়ে ওঠা খুব কঠিন হবে।”

ঝড়ে নিকারাগুয়ায় কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। দেশটিতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও সামান্যই।

Be the first to comment on "গ্রীষ্মকালীন ঝড়ে অন্তত ৯ জনের মৃত্যু"

Leave a Reply