কারাগারের ‘কালা পাহাড়’ এর দাম আকাশ ছোঁয়া

জেলখানায় জন্ম কালা পাহাড়ের। বয়স ৩ বছর ২ মাস। এরই মধ্যে সে প্রস্তুয় কোরবানির জন্য। তবে তার মালিক জেল সুপার চান না ষাঁড়টি কারাগারের বাইরে বিক্রি হোক। তিনি মনে করেন কারাগার চত্বরে বিক্রি হবে ষাঁড়টি। ইতোমধ্যে কালার দাম উঠেছে ৮ লাখ টাকা।

জানা যায়, কিশোরগঞ্জ কারাগারের সুপার মো. বজলুর রশীদের বাসভবন কারাগার চত্বরে। এর পাশ ঘেঁষেই গরুর খামার। জেল সুপার বজলুর রশীদ তার বাসভবনের কাছে ব্যক্তিগতভাবে গড়ে তুলেছেন গরুর খামার। এখানেই জন্ম কালা পাহাড়ের। তার খামারে বর্তমানে দুটি ষাঁড়, তিনটি গাভী ও দুটি বাছুর রয়েছে। কালা পাহাড় তার খামারের সবচেয়ে বড় এবং দৃষ্টিনন্দন। তাই কালা পাহাড়কে ঘিরে সবার আগ্রহ একটু বেশি। অনেকে ষাঁড়টি দেখতে আসছেন। দরদামও করছেন কেউ কেউ। কালা পাহাড়ের ওজন ২৭ মণ ৩৩ কেজি।

জেল সুপার মো. বজলুর রশীদ বলেন, ‘গরু পালন আমার শখ। ওদের সঙ্গে সময় কাটাতে ভালো লাগে। পাশাপাশি গরু পালনে লাভও হয়। খামারের গরুর গোবর কারাগারের ভেতরে সবজি বাগানে জৈব সার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। আসছে কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য কালো পাহাড়কে প্রস্তুত করা হয়েছে। কালো পাহাড়কে ৮ লাখ টাকায় বিক্রি করা হবে। তবে কালা পাহাড়কে কোরবানির হাটে তোলা হবে না। খামার থেকেই বিক্রি করা হবে। আর কালা পাহাড় বাইরে বিক্রি হোক আমি তা চাই না। তবে এখানের ভেতরের কোনো এক বাসিন্দা কালা পাহাড়কে কিনবেন বলেই আমার বিশ্বাস।’

Be the first to comment on "কারাগারের ‘কালা পাহাড়’ এর দাম আকাশ ছোঁয়া"

Leave a Reply