অষ্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড়,বিপদে পাকিস্তান।

অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের পর শতক করলেন পিটার হ্যান্ডসকম। দশম উইকেটে এলো প্রায় অর্ধশতকের জুটি। প্রথম ইনিংসে চারশ’ ছাড়ানোর পর পাকিস্তানকে চেপে ধরলেন জশ হেইজেলউড, মিচেল স্টার্ক, জ্যাকসন বার্ডরা। ব্যাটিং ব্যর্থতায় প্রথম টেস্টে ফলোঅনের শঙ্কায় এখন মিসবাহ-উল-হকের দল।
শুক্রবার গ্যাবায় দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ৯৭ রান। স্বাগতিকদের আবার ব্যাটিংয়ে পাঠাতে আরও ১৩৩ রান চাই তাদের। সরফরাজ ৩১ ও মোহাম্মদ আমির ৮ রানে ব্যাট করছেন।
মন্থর শুরু করা পাকিস্তান পঞ্চম ওভারে হারায় আজহার আলিকে। সামি আসলামের সঙ্গে প্রতিরোধ গড়া বাবর আজম ফিরেন বাজে এক শটে আউট হয়ে। পাকিস্তানের ধসের শুরুও তার উইকেট দিয়েই। পরের বলে ইউনুসকে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান হেইজেলউড। তার হ্যাটট্রিক ঠেকিয়ে দেওয়া মিসবাহ যেতে পারেননি দুই অঙ্কে।
পাকিস্তানের অধিনায়ককে বিদায় করা বার্ড নেন মাটি কামড়ে পড়ে থাকা আসলামের উইকেট। হেইজেলউডের বলে দুইবার হেলমেটে আঘাত লাগা এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষককে।
আসাদ শফিক, ইয়াসির শাহকে ফিরিয়ে পাকিস্তানের বিপদ আরও বাড়ান স্টার্ক। ফিরতি ক্যাচ নিয়ে ওয়াহাব রিয়াজকে বিদায় করেন হেইজেলউড।
১ উইকেটে ৪৩ রান থেকে পাকিস্তানের স্কোর পরিণত হয় ৬৭/৮-এ। স্বাগতিক পেসারদের গতি-বাউন্স যেন তাদের জন্য ছিল দুর্বোধ্য। ২৪ রানের মধ্যে ৭ উইকেট হারানো দলটির শতরান পর্যন্ত যাওয়া নিয়েই শঙ্কা জাগে।
ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিলে প্রতিরোধ গড়া সরফরাজ ও ১০ নম্বর ব্যাটসম্যান আমিরের অবিচ্ছিন্ন ৩০ রানের জুটিতে শতরানের পথে আছে পাকিস্তান। তবে তৃতীয় দিন অতিথিদের সামনে কঠিন সময়ই অপেক্ষা করছে।
১৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন পাকিস্তানকে সবচেয়ে বড় ধাক্কা দেওয়া হেইজেলউড। স্টার্ক ৩ উইকেট নিতে খরচ করেন ৪৫ রান। ৯ ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে দুই উইকেট নেন বার্ড।
এর আগে গ্যাবায় ৩ উইকেটে ২৮৮ রান নিয়ে খেলা শুরু করে অস্ট্রেলিয়া। দিনের শুরুতেই আমিরের হাতে জীবন পান স্মিথ। তার সঙ্গে হ্যান্ডসকমের দৃঢ়তাভরা ব্যাটিংয়ে ৩ উইকেটে ৩২৩ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড়ায় স্বাগতিকরা।
১৯টি চারে ১৩০ রান করা স্মিথকে ফিরিয়ে ঘুরে দাঁড়ায় পাকিস্তান। দ্বিতীয় টেস্টে এসেই প্রথম শতকের দেখা পাওয়া হ্যান্ডসকমের লড়াইয়ের পরও স্বাগতিকদের চারশ’ রানের নিচে বেধে ফেলার আশা জাগায় অতিথিরা।
১০টি চার ও একটি ছক্কায় ১০৫ রান করে হ্যান্ডসকম ফিরে যাওয়ার সময় অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ৯ উইকেটে ৩৮০ রান। সেখান থেকে ৪২৯ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব নাথান লায়ন ও বার্ডের। দশম উইকেটে এই দুই জনে গড়েন ৪৯ রানের আক্রমণাত্মক এক জুটি।
পাকিস্তানের দুই পেসার ওয়াহাব ও আমির নেন ৪টি করে উইকেট। বেশ কয়েকটি সুযোগ হাতছাড়া হওয়া লেগ স্পিনার ইয়াসির নেন বাকি দুই উইকেট।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস : ১৩০.১ ওভারে ৪২৯ (প্রথম দিন শেষে ২৮৮/৩) (রেনশ ৭১, ওয়ার্নার ৩২, খাওয়াজা ৪, স্মিথ ১৩০, হ্যান্ডসকম ১০৫, ম্যাডিনসন ১, ওয়েড ৭, স্টার্ক ১০, হেইজেলউড ৮, লায়ন ২৯, বার্ড ১৯*; আমির ৪/৯৭, রাহাত ০/৭৪, ইয়াসির ২/১২৯, ওয়াহাব ৪/৮৯, আজহার ০/৩৫)
পাকিস্তান ১ম ইনিংস : ৪৩ ওভারে ৯৭/৮ (আসলাম ২২, আজহার ৫, বাবর ১৯, ইউনুস ০, মিসবাহ ৪, শফিক ২, সরফরাজ ৩১*, ওয়াহাব ১, ইয়াসির ১, আমির ৮*; স্টার্ক ৩/৪৫, হেইজেলউড ৩/১৯, বার্ড ২/৭, লায়ন ০/২৩)

Be the first to comment on "অষ্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড়,বিপদে পাকিস্তান।"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*